Reviewed by Momizat on . নিউজবাংলা২৪ডটনেট:: দিনটির জন্য ১৭টি বছর অপেক্ষা করেছে বাংলাদেশ। অজস্র বাধা-বিপত্তি মাড়িয়ে ইতোমধ্যে ক্রিকেট বিশ্বে নিজেদের করে তুলেছে মজবুত এক প্রতিপক্ষ। কলম্বো নিউজবাংলা২৪ডটনেট:: দিনটির জন্য ১৭টি বছর অপেক্ষা করেছে বাংলাদেশ। অজস্র বাধা-বিপত্তি মাড়িয়ে ইতোমধ্যে ক্রিকেট বিশ্বে নিজেদের করে তুলেছে মজবুত এক প্রতিপক্ষ। কলম্বো Rating: 0
You Are Here: Home » খেলার খবর »

Bangladesh captain Mushfiqur Rahim (C) and teammates celebrate their victory over Sri Lanka by four wickets on the fifth and final day of the second and final Test cricket match between Sri Lanka and Bangladesh at The P. Sara Oval Cricket Stadium in Colombo on March 19, 2017. / AFP PHOTO / Ishara S. KODIKARA        (Photo credit should read ISHARA S. KODIKARA/AFP/Getty Images)

নিউজবাংলা২৪ডটনেট:: দিনটির জন্য ১৭টি বছর অপেক্ষা করেছে বাংলাদেশ। অজস্র বাধা-বিপত্তি মাড়িয়ে ইতোমধ্যে ক্রিকেট বিশ্বে নিজেদের করে তুলেছে মজবুত এক প্রতিপক্ষ। কলম্বো টেস্ট জিতে আরও একবার সেই বীরত্বের সাক্ষর রাখলেন টাইগাররা। উন্মোচন করলেন নতুন দিগন্তের। যে রেকর্ড আজ ইতিহাসের পাতায় খোদাই করেছেন সাকিব-মুশফিকরা। সেটি সত্যিই গৌরবের। যার জন্য দীর্ঘ দেড় যুগ অপেক্ষা করতে হয়েছে লাল-সবুজের বাংলাদেশকে। অবশ্য টেস্টে বাংলাদেশের জয়টা নতুন কিছু নয়। কিন্তু শতক টেস্ট ক’দেশই খেলেছে। কয়টা দেশ ই-বা পেরেছে উল্লাসে ভাসতে? কেউ পারুক বা না পারুক চণ্ডিকা হাতুরুসিংহের ছাত্ররা ঠিকই পেরেছে।

অথচ ২০১৭ সালটায় পরাজয়ের গ্লানি ছাড়া কিছুই জোটেনি মাশরাফি-মুশফিকদের কপালে। ফলে নিন্দুকদের সমালোচনার খড়গও পিছু ছাড়েনি টাইগারদের। সবশেষ জয়ের তীব্র ক্ষুধা নিয়ে শ্রীলঙ্কা সফরে যায় বাংলাদেশ। সবার আশা, এবার বোধ হয় হতাশার বৃত্ত থেকে বেরোবে লাল-সবুজের পতাকাধারীরা। কিন্তু প্রথম টেস্টে হতে হতেও হলো না। বাংলাদেশ হারল ২৫৯ রানের বড়সড় ব্যবধানে।

তবুও যে এদেশের ক্রিকেটপাগলেরা আশা ছাড়েননি। শততম টেস্টকে সামনে রেখে বন্ধ করেননি স্বপ্ন দেখা। অবশেষে মিলল সেই প্রতীক্ষার ফল। যে জয়টা মনে-প্রাণে চেয়েছে এদেশের ১৬ কোটি বাঙালি। সেটাই আজ হাতেনাতে পেল বাংলাদেশ। স্বাগতিক শ্রীলঙ্কাকে ৪ উইকেটে হারিয়ে কলম্বোর পি সারা ওভালের সব আলো নিজেদের করে নিল মুশফিক বাহিনী।

টেস্ট হয়েছে টেস্টের মতোই। পাঁচ দিনে দাঁতে দাঁত লাগিয়ে লড়াই করেছে দু’দল। তবে সবকিছু ছাপিয়ে শেষ দিনের রোমাঞ্চটা নজর কেড়েছে সবার। আগের দিনের ৮ উইকেটে ২৬৮ রান নিয়ে আজ ব্যাটিংয়ে নামে শ্রীলঙ্কা। অনেকে ভেবে নিয়েছেন সাতসকালেই বুঝি অলআউট হয়ে যাবে স্বাগতিকরা। কিন্তু লঙ্কান লেজের ঝাঁঝের কথা হয়তো ভুলেই গেছেন তারা। সেটা আরও একবার মনে করিয়ে দেন দিলরুয়ান আর লাকমাল। শেষমেশ জয়ের জন্য ১৯১ রানের লক্ষ্যমাত্রা ছুঁড়ে দিলেন হেরাথ-চান্দিমালরা।

লক্ষ্যটা সাদা চোখে যতটা সহজ, ততটা নয়। ব্যাটিংয়ে নেমে শুরুতেই বড়সড় ধাক্কা খেল বাংলাদেশ। প্রথম সারির দুই ব্যাটসম্যান সৌম্য সরকার ১০ আর ইমরুল কায়েস ফিরে যান খালি হাতেই। দিনের শুরুতে দুই উইকেট হারিয়ে খানিকটা বিপাকে পড়ে বাংলাদেশ। কিন্তু তামিম ইকবাল এবং সাব্বির রহমানের নজরকাড়া ইনিংসে টাইগার শিবিরে বয় স্বস্তির বাতাস। আশার ভেলাটা ধীরে ধীরে ভিড়তে থাকে কাঙ্ক্ষিত গন্তব্যের দিকে।

সময়ের সঙ্গে সঙ্গে ম্যাচের গতিপথও পরিবর্তন হয়। দারুণ এক জুটির পর সাজঘরে ফিরে যান তামিম-সাব্বির। এরপর উইকেটে থিতু হতে পারেননি প্রথম ইনিংসে ১১৬ করা সাকিব আল হাসানও। দুরু দুরু কাঁপন নিয়ে নিস্তব্ধ কলম্বোকে জাগিয়ে তোলেন অভিষিক্ত মোসাদ্দেক হোসেন। তাঁর সঙ্গী হয়ে ভরসার মশাল জ্বালান টাইগার কাপ্তান মুশফিকুর রহিম। আর মাত্র ২ রান হলেই জয়োল্লাসে মাতবে বাংলাদেশ। এমন একটা মুহূর্তে মোসাদ্দেকের বিদায় ঘণ্টা বাজান হেরাথ।

মনের ভেতরটা আচমকা মোচড় দিয়ে উঠল। কি হচ্ছে? খারাপ কিছু দেখতে হবে না তো। ততক্ষণে এক পা দুই পা করে উইকেটে ঢুকলেন মেহেদী হাসান মিরাজ। আক্রমণে ছিলেন রঙ্গনা হেরাথ। মিরাজকে প্রথম দুই বল সমীহ করতে বাধ্য করলেন লঙ্কান কাপ্তান। তৃতীয় বলকে ফাইন লেগে ঘুরিয়েই দে দৌড়। দুই রান নিতে দেরি কিন্তু মিরাজকে জড়িয়ে উদযাপনে কোনো দেরি নেই। চারদিক থেকে ভেসে আসল বাংলাদেশ, বাংলাদেশ প্রতিধ্বনি। মাত্র ১০-১২ জন টাইগার সমর্থক পুরো পি সারাকে যেন মাতায় তুলছে। আহা, কি আনন্দ আকাশে-বাতাসে।

সংক্ষিপ্ত স্কোর:

শ্রীলঙ্কা দ্বিতীয় ইনিংস: ৩১৯ (দিমুথ করুণারত্নে ১২৬, উপুল থারাঙ্গা ২৬, কুসল মেন্ডিস ৩৬, দিনেশ চান্দিমাল ৫, আসেলা গুনারত্নে ৭, ধনঞ্জয়া ডি সিলভা ০, নিরোশান ডিকওয়েলা ৫, দিলরুয়ান পেরেরা ৫০, রঙ্গনা হেরাথ ৯, সুরঙ্গা লাকমল ৪২, লক্ষণ সান্দাকান ০*; সাকিব আল হাসান ৪/৭৪, মোস্তাফিজুর রহমান ৩/৭৮, মেহেদী হাসান মিরাজ ১/৭১, তাইজুল ইসলাম ১/৩৮)

বাংলাদেশ দ্বিতীয় ইনিংস: ১৯১/৬ (তামিম ইকবাল ৮২, সৌম্য সরকার ১০, ইমরুল কায়েস ০, সাব্বির রহমান ৪১, সাকিব আল হাসান ১৫; মুশফিকুর রহিম ২২*, মোসাদ্দেক হোসেন ১৩, মেহেদী হাসান মিরাজ ২*; দিলরুয়ান পেরেরা ৩/৫৯, রঙ্গনা হেরাথ ৩/৭৫)

ম্যাচ সেরা: তামিম ইকবাল

সিরিজ সেরা: সাকিব আল হাসান

ফল: বাংলাদেশ ৪ উইকেটে জয়ী।

About The Author

Number of Entries : 2472

Leave a Comment

Scroll to top